শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১
Logo
যশোরে চাঁদা না পেয়ে ঠিকাদারকে হাতুড়ি পেটা

যশোরে চাঁদা না পেয়ে ঠিকাদারকে হাতুড়ি পেটা

যশোরে চাঁদার টাকা না পেয়ে হাতুড়ি পেটায় ঠিকাদারের হাত পা ভেঙ্গে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এসময় তাকে ছুরিকাঘাতও করা হয়।

 

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সদর উপজেলার চুড়ামনকাটি ইউনিয়নের জগহাটি গ্রামে হামলার ঘটনাটি ঘটে।

 

আহত ঠিকাদারের নাম মহিদুল ইসলাম মিন্টু (৫০)। তিনি চৌগাছা উপজেলার ইছাপুর গ্রামের ইউসুফ আলী মৃধার ছেলে। এই ঘটনার পর থেকে রাস্তার নির্মাণ কাজ বন্ধ রয়েছে।

 

আহত মহিদুল ইসলাম মিন্টু জানিয়েছেন, চুড়ামনকাটির জগহাটি রুলপাড়া থেকে পশ্চিমপাড়া ব্রিজ পর্যন্ত ১৫শ’ মিটার রাস্তার পাকাকরণের কাজ চলছে। আমি এই কাজের ঠিকাদারের দায়িত্বে রয়েছি। চুড়ামনকাটি ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে বাচ্চুসহ আরো কয়েকজন কয়েকদিন আগে আমার কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা নিয়ে যায়।

 

বৃহস্পতিবার সকালে তারা আবারো ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। আমি দিতে অস্বীকার করলে তারা রাস্তার কাজ বন্ধ করার হুমকি দেয়। চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতেই সাবেক মেম্বর রাজ্জাকের নেতৃত্বে বাচ্চুসহ ক্যাডার বাহিনী আমার উপর হামলা চালায়। এসময় তারা আমার দুই হাত ও এক পায়ে হাতুড়ি পেটা করে। আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ছুরিকাঘাতও করা হয়।

 

ঘটনার পর স্থানীয় লোকজন আমাকে উদ্ধার করে চৌগাছা মডেল হাসপাতালে ভর্তি করেছেন। এই ঘটনায় হামলাকারীদের নাম উল্লেখ করে মামলা করবেন বলে জানান ঠিকাদার মহিদুল ইসলাম মিন্টু।

 

চৌগাছা হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মাসুম বিল্লাহ জানিয়েছেন, আঘাতে আহত মিন্টুর দুই হাত ও একটি পা ভেঙ্গে গেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এক্সরে রিপোর্টে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে। সার্জারী ওয়ার্ডে তার চিকিৎসা সেবা চলছে।

 

এই বিষয়ে বাচ্চু মুঠোফোনে জানিয়েছেন, রাস্তার কাজ অনিয়মের প্রতিবাদ করায় ঠিকাদার মিন্টু আগে আমার মাথায় হেলমেট দিয়ে আঘাত করে। আমার মাথায় ৫টি সেলাই দিতে হয়েছে। আমাকে জখম করার পর উপস্থিত লোকজন ঠিকাদারকে জখম করেছে।

 

সাবেক মেম্বর আব্দুর রাজ্জাক জানান, ঠিকাদারের কাছে চাঁদা দাবি করা হয়নি। আমি ও আমার লোকের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করা হচ্ছে। সাজিয়ালী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই সুকুমার কুমার কুন্ডু জানান, ঠিকাদার মিন্টুর ওপর হামলার ঘটনা শুনেছি। বর্তমানে রাস্তার নির্মাণ কাজ বন্ধ রয়েছে। চাঁদার দাবি করার জেরে এই ঘটনা কিনা তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

সংযুক্ত থাকুন