রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১
Logo
চুকনগর বাজারে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শুরু

চুকনগর বাজারে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শুরু

 

খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার চুকনগর বাজারের যতিন-কাশেম রোডের দু'পাশে জেলা পরিষদের মালিকানাধীন জায়গায় অবৈধভাবে গড়ে তোলা সকল স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে জেলা পরিষদের সচিব বিষ্ণু পদ দাস, ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আবদুল ওয়াদুদ, জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ রাকিবুল হাসান, জেলা পরিষদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা এস এম মাহাবুবুর রহমান, সার্ভেয়ার আবু হানিফসহ অন্যান্য কর্মচারীদের উপস্থিতিতে ২টি বুল ডোজার এবং বিপুল সংখ্যক শ্রমিক নিয়ে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হয়।

 

উচ্ছেদ অভিযানে থানা পুলিশ, ফায়ার সার্ভিসসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা সহযোগিতা করেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ডুমুরিয়া উপজেলার জনবহুল ও ব্যস্ততম ব্যবসা কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত চুকনগর বাজারে জেলা পরিষদের মালিকানাধিন প্রায় ৭০ ফুট চওড়া যতিন-কাশেম রোড। অথচ রাস্তার দু'পাশের প্রায় অর্ধেক পরিমান জায়গা- জমি যুগ যুগ ধরে স্থানীয় কতিপয় প্রভাবশালী ব্যক্তি অবৈধ ভাবে দখল করে অন্তত শতাধিক এক তলা থেকে তিন তলা পর্যন্ত পাঁকা ভবন নির্মাণ করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বসত বাড়ি গড়ে তুলেছেন।


এতে রাস্তা সংকুচিত হওয়ার ফলে যান ও জনসাধারণের চলাচলে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। গত বছর নভেম্বর মাসে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় হতে অবৈধ দখলদারদের স্থাপনা সরিয়ে নিতে এক সপ্তাহ সময় দিয়ে নোটিশ প্রদান করা হয়। কিন্ত কোন দখলদার স্থাপনা সরিয়ে না নিয়ে নিজ নিজ অবস্থানে বহাল থাকেন।


এ দিকে জেলা পরিষদের পক্ষ হতে উচ্ছেদ অভিযান সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য গত মঙ্গলবার সড়কটি পরিদর্শন করেন খুলনা জেলা পরিষদের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ। তারা বুধবারের মধ্যে সকল স্থাপনা মালিককে নিজ নিজ দায়িত্বে তাদের স্থাপনা অপসারণের নির্দেশ দেন। বুধবার জেলা পরিষদের সার্ভেয়ার সরেজমিনে যেয়ে পরিষদের জায়গার সীমানা নির্ধারণ করে লাল কালি দাগ দিয়ে মার্কিং করেন।


এ বিষয়ে খুলনা জেলা পরিষদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা এস,এম,এম মাহাবুর রহমান জানান, চুকনগর বাজার তিনটি জেলার সংযোগস্থল হওয়ায় অধিক গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে।


এছাড়া জেলা পরিষদের মালিকানাধীন বাজারের যতিন-কাসেম সড়ক ঘিরে গড়ে উঠেছে অন্যতম ব্যবসায়ীক কেন্দ্র। অথচ জেলা পরিষদকে কিছু না জানিয়ে সড়কের দুই পাশে অবৈধভাবে একতলা, দোতলা ও তিনতলা ভবনসহ অসংখ্য স্থাপনা নির্মাণ করা হয়েছে। ফলে ধীরে ধীরে সড়কটি সংকোচিত হয়ে পড়েছে।


জনগনের অবাধ চলাচলে বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। তাই জনস্বার্থে ও ভবিষত্যের কথা চিন্তা করে সড়কটির দুই পাশে গড়ে উঠা সকল অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে অবৈধ সকল স্থাপনা সরিয়ে নিতে মালিকদের নোটিশ করা হয়েছিল। জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে খুলনা জেলা পরিষদের এই জমি ভোগ দখল করে আসছে প্রায় শতাধিক ব্যক্তি।


তারা অনেকে দোকান ঘর ও বাসা বাড়ি তৈরী করে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ভাড়া দিয়ে আয় রোজগার করছেন। এতে এক দিকে সরকার রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে অপর দিকে সাধারণ মানুষকে পোহাতে হচ্ছে ভোগান্তি।


উচ্ছেদ অভিযানের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের চলাচল নির্বিঘ্ন হওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন এলাকার ভূক্তভোগী মানুষ।

সংযুক্ত থাকুন