বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১
Logo
খুলনা বিভাগে করোনা শনাক্তে নতুন রেকর্ড : একদিনে আক্রান্ত ৩শ’৭৭ জন

খুলনা বিভাগে করোনা শনাক্তে নতুন রেকর্ড : একদিনে আক্রান্ত ৩শ’৭৭ জন

খুলনা বিভাগে এক দিনে করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্তের নতুন রেকর্ড হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় বিভাগে করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন ৩শ’৭৭ জন। এ সময়ে মারা গেছেন পাঁচজন। গত ছয় দিনের মধ্যে এ নিয়ে তিন দফায় এক দিনে সর্বোচ্চ সংখ্যক রোগী শনাক্তের ঘটনা ঘটল। এর আগে গত ১ জুন খুলনায় ৩শ’ জনের শরীরে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছিল; যা ছিল সর্বোচ্চ। এ নিয়ে বিভাগে মোট সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ৩৫ হাজার ৪শ’৯০ জন। তার মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৩১ হাজার ৬শ’৯৩ জন। সুস্থতার হার ৮৯ শতাংশ। আর মারা গেছেন ৬শ’৬০ জন। বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক রাশেদা সুলতানা শুক্রবার এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। বিভাগের ১০ জেলার মধ্যে কেবল খুলনা জেলায় করোনা রোগী সাড়ে ১০ হাজার। এর মধ্যে আবার শুধু খুলনা নগরেই সাড়ে ৮ হাজার ছাড়িয়েছে। বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনা সংক্রান্ত দৈনিক প্রতিবেদন বিশ্লেষণে দেখা গেছে, গত সাত দিনে (২৯ মে থেকে ৪ জুন) ১ হাজার ৭শ’৪৪ জনের অর্থাৎ প্রতিদিন গড়ে ২শ’৫০ জনের মাঝে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। এই সময়ে মারা গেছেন ৩২ জন। এর আগের সাত দিনে (২২ থেকে ২৮ মে) ৮শ’৮০ জনের অর্থাৎ প্রতিদিন গড়ে ১শ’২৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল। ওই সময়ে মারা যান ১৮ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্ত ব্যক্তিদের মধ্যে খুলনা জেলায় রয়েছেন ৮৯ জন (নগরে ৭৬)। এছাড়া বাগেরহাটে ৪৩ জন, যশোরে ৭০ জন, সাতক্ষীরায় ৪৯ জন, নড়াইলে আটজন, মাগুরায় ছয়জন, মেহেরপুরে ১২ জন, চুয়াডাঙ্গায় ৫১ জন, ঝিনাইদহে ১৫ জন ও কুষ্টিয়ার ৩৪ জন। বর্তমানে বিভাগে করোনায় আক্রান্ত হয়ে বাসায় আর হাসপাতালে মোট চিকিৎসাধীন ৩ হাজার ১শ’৩৭ জন। খুলনার ১শ’ শয্যার করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের ফোকাল পারসন সুহাস রঞ্জন হালদার জানান, হাসপাতালে ৮৯ জন করোনা পজিটিভ রোগী চিকিৎসাধীন, যার ১৫ জন আছেন আইসিইউ ও এইচডিইউতে। উপসর্গ নিয়ে ভর্তি আছেন ২০ জন। এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় বাগেরহাট ও কুষ্টিয়ায় দুইজন করে করোনা রোগী মারা গেছেন। বিভাগে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে খুলনা জেলার ১শ’৭৭ জন, কুষ্টিয়ার ১শ’১৮, যশোরের ৮১, চুয়াডাঙ্গার ৬২, ঝিনাইদহের ৫৬, সাতক্ষীরার ৪৭, বাগেরহাটের ৪৬, নড়াইলের ২৭, মাগুরার ২৩ ও মেহেরপুরের ২৩ জন রয়েছেন। মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৮৬ শতাংশ।

সংযুক্ত থাকুন