অভয়নগরের ভৈরব নদ গিলে খাচ্ছে ৬০ অবৈধ জেটি : দুই দিনে ২৯টি উচ্ছেদ

0
49


স্টাফ রিপোর্টার
যশোরের অভয়নগরে ভৈরব নদীর ভেতর অনুমোদনহীন ২৯টি অবৈধ জেটি উচ্ছেদ করা হয়েছে। গত বুধবার ও বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ এ অভিযান পরিচালনা করে। নওয়াপাড়া নদী বন্দর অফিস জানায়, অভিযান চলাকালে নওয়াপাড়া নদীবন্দর এলাকার রাজঘাট মাইলপোস্ট এলাকা থেকে ভাঙ্গাগেট পর্যন্ত ছোট-বড় ২৯টি অনুমোদনহীন অবৈধ জেটি উচ্ছেদ করা হয়েছে।

বুধবার বন্দর এলাকার ব্রাইট ঘাটের একটি, একই এলাকার চাকলাদার স্টোন হাউজের একটি, তালতলা এলাকায় তালতলা স্টোনের একটি, একই এলাকার সরকার ট্রেডার্স, আকরাম হাজী ও দীপু স্টোনের একটি করে মোট চারটি, নওয়াপাড়া ফেরিঘাট এলাকায় অধিকারী ট্রেডার্সের একটি, শংকরপাশা গ্রামে রফিক ও তার ভাইয়ের একটি করে মোট ৯টি উচ্ছেদ করা হয়েছে। এছাড়া বৃহস্পতিবার বন্দর এলাকার ফেরিঘাট সংলগ্ন পোটন ট্রেডার্সের একটি, শংকরপাশা গ্রামে শহিদুল ইসলামের একটি, একই গ্রামে ইউনাইটেড ঘাটে একটি, ফজলু শেখের দুটি, আইয়ান-আরিশ ঘাটে একটি, বসুধা ঘাটে একটি, আফিল ট্রেডার্সের ছয়টি, নিয়তি ট্রেডার্সের একটি, ভাঙ্গাগেট ভৈরব সেতু সংলগ্ন পরশ আটা ময়দা ঘাটে তিনটি, একই এলাকার সরকারে ট্রেডার্সের একটি, জয়েন্ট ট্রেডার্সের একটি ও মালোপাড়ার একটি মোট ২৯টি জেটি উচ্ছেদ করা হয়েছে।

নওয়াপাড়া নদী বন্দরের উপ-পরিচালক মাসুদ পারভেজ জানান, নওয়াপাড়া নদীবন্দর এলাকায় ভৈরব নদীর ভেতর মাটি ভরাট করা অনুমোদনহীন অবৈধ ৬০টি জেটি চিহ্নিত করা হয়েছে। ওইসব ঘাট মালিককে বার বার লিখিত নোটিশ দেওয়া হয়েছে। সর্বশেষ মাইকিং করার পরও তারা তাদের অবৈধ জেটি উচ্ছেদ করেনি। দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার মধ্যে বুধবার ৯টি এবং বৃহস্পতিবার ২০টি মোট ২৯টি জেটি বিআইডব্লিউটিএ’র লংবুমের মাধ্যমে ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসের পর বাকি ৩১টি অবৈধ জেটি উচ্ছেদ করা হবে। ভৈরব নদী ও নওয়াপাড়া নদী বন্দর রক্ষায় এধরণের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

অভিযান চলাকালে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বিআইডব্লিউটিএ’র যুগ্ম পরিচালক আশরাফ হোসেন, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শোভন রাংসা, অভয়নগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) তানজিলা আখতার, অভয়নগর থানার ওসি একেএম শামীম হাসানসহ থানা পুলিশ, নৌপুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যবৃন্দ। জানা গেছে, অভয়নগরে নওয়াপাড়া নদী বন্দর এলাকার প্রায় ১০ কিলোমিটারের মধ্যে অনুমোদনহীন ৬০টি অবৈধ জেটি নির্মাণ করা হয়েছে। এক শ্রেণির ব্যবসায়ী ও ঘাট মালিক নদীর ভেতর মাটি ভরাট করে এসব জেটি নির্মাণ করেছেন। যে কারণে পানি প্রবাহ বাধাগ্রস্থ হয়ে নদীর নাব্যতা হ্রাস পাচ্ছে। ব্যাহত হচ্ছে নৌযান চলাচল। ঘটছে ছোটবড় দুর্ঘটনা।

Comment using Facebook