খুলনাঞ্চলে লোড শেডিংয়ের গ্যাড়াকলে কদর বেড়েছে তাল পাখার!

0
26


মিহির, শিল্পাঞ্চল (খুলনা)
আমাদের ঋতুচক্রে বৈশাখ মাস এলেই শুরু হওয়া গরম যা আষাঢ় শ্রাবণে কিছুটা কমে আসে, কিন্তু এবারের বিরুপ আবহাওয়ার জন্য বৃষ্টিপাত কম হওয়ায় এখনও সারা বিশ্বব্যাপি চলছে প্রচ- দাবদাহ। এর সাথে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারনে সারা বিশ্বব্যাপি তেল সংকটের প্রভাবে আমাদের দেশেও সরকারি ভাবে দিনে এক ঘন্টা থেকে ২ ঘন্টা করে লোড শেডিং ঘোষনা করা হয়। এই লোড শেডিং ঘোষনার সাথে সাথে বাজারে চার্জার লাইট ও চার্জার ফ্যানের চাহিদা বেড়েছে। তেমনি মধ্যবিত্ত ও নিন্ম বিত্তেরদের এই ভ্যাপসা গরমে বিদ্যুতের লোড শেডিংয়ে তালপাখাই একমাত্র ভরসা। তাই গ্রামে গঞ্জের হাট বাজারে বেড়েছে তাল পাখার চাহিদা।

লোড শেডিংয়ের কারনে এই গরমে প্রাণ জুড়ানো শিতল বাতাস পেতে বাংলার গ্রামে গঞ্জে পরিবেশ বান্ধব তালপাখার কোন জুড়ি নেই। গ্রামীণ জীবনে গরমকালে এখনো তালের পাখার ভুমিকা অপরিহরিসীম। আধুনিক বিজ্ঞানের অগ্রগতির যুগে পাখার বিকল্প অনেক যন্ত্রের আবিষ্কার হলেও শিতল বাতাশের জন্য তাল পাখার জুড়ি নেই। তাইতো প্রবাদ আছে “আমার নাম তালের পাখা শীতকালে ভাই দেইনা দেখা, গ্রীষ্মকালে সকলের প্রাণের সখা। গতকাল আসলেই গ্রামে গঞ্জে হাটে বাজারে দোকান পাটে বৈশাখী মেলাসহ বিভিন্ন মেলায় এই তাল পাখা বিক্রয় করতে দেখা যায়।

এছাড়া কাধেঁ করে ফেরি করেও তাল পাখা বিক্রয় করতে দেখা যায়। শিরোমনি বাজারে তেমনি একজন তাল পাখা বিক্রেতা যশোর অভয়নগর সিদ্ধিপাশা গ্রামের ঈমান আলী। সারা বছর কাঁচা মাল বেচাকেনার কাজ করলেও গরমের সময় আসলেই বিভিন্ন গ্রামে ঘুরে ঘুরে তালের পাখা বিক্রয় করে। পাখা বিক্রেতা ঈমান আলী বলেন, এই গরমে ও লোড শেডিং বেড়ে যাওয়ায় তাল পাখার চাহিদা বেড়েছে। চাহিদার সাখে সাথে দাম ও বেড়েছে। আগে যে পাখা বিক্রয় হতো ২ টাকা তা এখন ৪০ টাকা থেকে ৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় আমাদের মাহাজনরাও দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। স্কুল শিক্ষিকা তহমিনা বলেন, প্রতিদিন ৪-৫ বারও লোড সেডিং হচ্ছে এই গরমে যে হারে লোড শেডিং হচ্ছে তাতে বাসার জন্য ৪টি তাল পাখা কিনেছি রাতে বিদ্যুৎ চলে গেলে তাল পাখা একমাত্র ভরসা।

Comment using Facebook