অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে আছে ঝিনাইদহের মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স গুলো

0
25


বিশেষ প্রতিনিধি, ঝিনাইদহ
ঝিনাইদহের বিভিন্ন উপজেলায় নির্মিত মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সগুলো অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে আছে। কয়েকটির কিছু দোকান বরাদ্ধ দেওয়া হলেও অনেকগুলো এখনও তালাবন্ধ রয়েছে। এতে ব্যহত হচ্ছে সরকারের মহৎ উদ্দেশ্য। কারণ হিসেবে মুক্তিযোদ্ধারা বলছেন, ভবনগুলোতে পুরোদমে চালু রাখতে প্রয়োজন নির্বাচিত মুক্তিযোদ্ধা সংসদ।

ঝিনাইদহ এলজিইডির দেওয়া তথ্য মতে, জেলা সদরসহ জেলার ৬ উপজেলায় ৬টি মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স তৈরীতে ব্যায় হয়েছে ১২ কোটি ৪১ লাখ টাকা। মুক্তিযোদ্ধাদের বসার স্থায়ী স্থান ও কমপ্লেক্সগুলো থেকে পাওয়া দোকান ভাড়া থেকে অর্জিত আয় দিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের সহযোগিতা ও অফিসের দৈনন্দিন আয় মেটানোর কথা থাকলেও সেটা বাস্তবায়িত হচ্ছে না। সেই সাথে সেখানে গিয়ে সময় কাটাতেও পারছেন না জাতির বীর সন্তানেরা। মুক্তিযোদ্ধারা বলছেন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের নির্বাচিত কমিটি না থাকায় ভবনগুলো ব্যবহার হচ্ছে না। দ্রুত মুক্তিযোদ্ধা সংসদের নির্বাচন দিয়ে নির্বাচিত কমিটির হাতে ভবনগুলো বুঝিয়ে দিলেই বাস্তবায়িত হবে সরকারের মহৎ উদ্দেশ্য। শৈলকুপা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মনোয়ার হোসেন মালিতা বলেন, ২০১৪ সালে মুক্তিযোদ্ধা সংসদের নির্বাচন হয়।

২০১৭ সালে মেয়াদ শেষ হয়। তারপর থেকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইউনিট কমান্ডারের দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি সাবেক ইউনিট কমান্ডার হিসাবে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বিভিন্ন বিষয় দেখভাল করেন। বীর মুক্তিযোদ্ধাগন তাদের আগের অফিসে বসছেন। মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স নির্মাণ করা হলেও তা হস্তান্তর করা হয়নি। ঘর ভাড়া নিয়ে আমাদের বসতে হয়। এ ব্যাপারে জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার ও জেলা প্রশাসক মনিরা বেগম বলেন, মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেগুলোর কিছু অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে আছে। কিছু দোকান ভাড়া দেওয়া হয়েছে। তা থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের সহযোগিতা করা হয়। তারপরও যেগুলো তালাবদ্ধ অবস্থায় আছে সেগুলো যেন ব্যবহার হয় সে ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

Comment using Facebook