নওয়াপাড়া নুরবাগ স্বাধীনতা চত্বরে স্থায়ী ট্রাফিক পুলিশ এখন সময়ের দাবী

0
100

আমিনুর রহমান

অভয়নগর উপজেলার শিল্প-শহর নওয়াপাড়ার হাসপাতাল সড়ক তথা নুরবাগ স্বাধীনতা চত্বরে দিন দিন যানজট প্রকট আকার ধারণ করছে। এখানে যানজট শুরু হলে ১০মিনিট থেকে আধা ঘন্টা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয় রোগীসহ সাধারণ মানুষের।

প্রতিদিন সকাল ১১ টা পর্যন্ত এ যানজট লেগেই থাকে। ফলে স্থায়ীভাবে ট্রাফিক পুলিশ থাকার প্রয়োজন দেখা দিয়েছে। স্বাধীনতা চত্বর হল চার রাস্তার সংযোগ সড়ক।

সড়কের দুপাশে যত্রতত্র ভ্যান, রিক্সা, মোটরসাইকেল, সিএনজি, অটোরিক্সা ও থ্রি হুইলারের স্টান্ড এবং দু’পাশে ফুটপাত অবৈধভাবে গড়ে ওঠা দোকান এ সড়কের যানজটের মূল কারণ বলে জানিয়েছেন পথচারীরা। নওয়াপাড়া নূরবাগ থেকে অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স দূরত্ব এক কিলোমিটার। উপজেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এ সড়ক দিয়েই রোগীদের যাতায়াত। অনেক সময় রোগী নিয়ে দীর্ঘক্ষণ জ্যামে আটকা থেকে রোগীর অবস্থা শেষ পর্যায়ে গিয়ে পৌঁছে।

এছাড়া, ফুলতলা মণিরামপুর, কেশবপুর, ডুমুরিয়া ও ঝিকরগাছা উপজেলাসহ সাতক্ষীরা জেলার সাথে সংযোগ স্থাপন করেছে এ সড়কটি। ফলে এটি নওয়াপাড়া শিল্প শহরের অত্যন্ত ব্যস্ততম ও গুরুত্বপূর্ণ সড়ক। নওয়াপাড়ার প্রাণকেন্দ্র নূরবাগ হাইওয়ের উপর দু’পাশে রয়েছে যাত্রীবাহী বাস, ভ্যান, রিক্সা, সিএনজি, অটোরিক্সা ও থ্রি হুইলারের স্টান্ড। এরপর হাসপাতাল রোডের মুখেই ঠাঁই দাঁড়িয়ে থাকে মোটরচালিত ভ্যান, রিক্সা ও অটোরিক্সা। এর পঞ্চাশ গজ পার হতে না হতেই স্বাধীনতা চত্বর সড়কের দুপাশে রয়েছে পাঁচটি স্টান্ড।

রাস্তার দু’পাশের দোকানদার’রা রাস্তার পরেই টিনের সেড দিয় ব্যাবসা করছেন। অনেক ব্যাবসায়ী তাদের দোকানের সামনে রাস্তার উপর উপ-ভাড়াটিয়া দিয়ে দোকান বসিয়েছেন। এছাড়া রাস্তার পাশে ভ্যানের উপর ফল ও কাঁচামাল রেখে অনেকে ব্যবসা করছেন। অধিকাংশ সময়ই ট্রাক সড়কের উপর দাঁড়িয় পণ্য লোড-আনলোড করে থাকে। ফলে প্রতিদিন প্রতিনিয়ত নওয়াপাড়ার এ গুরুত্বপূর্ণ সড়কে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়। শিক্ষক সোলায়মান হোসেন বলেন, স্বাধীনতা চত্বরে প্রতিদিনই জ্যাম লেগে থাকে। অফিসে যেতে জ্যামে আটকে গিয়ে প্রায় লেট হয়ে যায়। অনেক সার সিমেন্ট, রড, স্যানিটারী দোকানসহ বড় বড় ব্যবসা এই বাইপাস সড়কে আসায় যানজট বেশী হচ্ছে।

হাসপাতাল সড়কটি জনগুরুত্বপূর্ন হওয়া সত্বেও যানজটের ভোগান্তিতে অতিষ্ট মানুষ। সবচেয়ে সমস্যায় পড়তে হয় রোগী পরিবহনে। এসমস্ত সমস্যার সমাধানের একমাত্র পথ হল স্বাধীনতা চত্বরে স্থায়ীভাবে ট্রাফিক পুলিশ রাখতে হবে। বিষয়টি জনপ্রতিনিধিদের আন্তরিকতার সাথে দেখা দরকার। সরেজমিনে দেখা যায়, ওই সড়কের স্বাধীনতা চত্বর ও নুরবাগ রেলক্রসিং এলাকায় রাস্তার উপর যত্রতত্র গড়ে উঠছে প্রায় ডজন-খানেক ষ্ট্যান্ড। এগুলোর বেশ কয়েকটিতে পৌরসভার সাইনবোর্ড টানানো রয়েছে।

প্রতিনিয়ত যানজটের কারণে হাসপাতালে রোগী নেয়ার ক্ষেত্রে ভোগান্তিতে পড়তে হয় রোগীর স্বজনদের। উপজলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেজবাহ উদ্দীন বলেন, বিষয়টি পৌর এলাকায় হওয়ায় পৌর মেয়রকে সমাধানের জন্য বলা হয়েছে। নওয়াপাড়া পৌর মেয়র সুশান্ত দাস শান্ত বলেন, রাস্তার ওপর পৌরসভার কোন ষ্ট্যান্ডের অনুমোদন দেওয়া হয়নি। তারা নিজরাই পৌরসভার নামে সাইনবোর্ড ঝুলিয়েছে। দ্রুতই ওই সড়কের যানজট মুক্ত করতে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Comment using Facebook