২১ বছর পর ঝিকরগাছায় পৌর নির্বাচন, আবারও মামলা: বন্ধ নবনির্বাচিতদের দায়িত্বগ্রহন

0
53

আবুল কালাম আজাদ, ঝিকরগাছা

সীমানা সংক্রান্ত মামলার জটিলতা কাটিয়ে দীর্ঘ ২১ বছর পর গত ১৬ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হয়েছে যশোরের ঝিকরগাছা পৌরসভা নির্বাচন।

তবে ভোটগ্রহনের প্রায় দুই মাস পার হলেও সরকারিভাবে ফলাফল প্রকাশ না হওয়ায় শপথ নিতে পারছেন না নবনির্বাচিতরা।

ফলে বন্ধ আছে তাদের দায়িত্বগ্রহন। তবে পূর্বের মেয়র মোস্তফা আনোয়ার পাশা জামাল বেসরকারি ফলাফলে নির্বাচিত হওয়ায় দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। এদিকে ভোটের পরে আগের কাউন্সিলররা কার্যালয়ে আসেন না, আবার নবনির্বাচিতরাও দাপ্তরিকভাবে কিছু করতে পারছেন না। তাই নাগরিক ভোগান্তিতে পড়ছে পৌরবাসী।

নবনির্বাচিত ৯ কাউন্সিলর ও ৩ নারী কাউন্সিলরকে জনপ্রতিনিধি হিসেবে না পাওয়ায় তাদের মনে নতুন করে আক্ষেপের জন্ম নিয়েছে।

নির্বাচন কার্যালয়ের তথ্য মতে, গত ১৬ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হয় ভোটগ্রহন। বেসরকারিভাবে ফলাফলও ঘোষণা করা হয়।

কিন্তু ওই দিন হাইকোর্টের রায়ে পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ড কীর্তিপুর খাদেমুল ইনসান (মহিলা) কেন্দ্রের ফলাফল স্থগিত করা হয়। আর এতেই আটকে যায় নির্বাচনের পরবর্তী কার্যক্রম। চার সপ্তাহের জন্য স্থগিত করা রিটটি করেন ঝিকরগাছার সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বিএনপি নেত্রী সাবিরা সুলতানা।

রিটে তিনি ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বিজিত প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলমের এজেন্ট হিসেবে উল্লেখ করেছেন। চার সপ্তাহ পর রিটের বাদী অধিক শুনানির জন্য আদালতে ফের আবেদন করেন। এতে ঝুলে যায় নির্বাচিতদের গেজেট। এরই মধ্যে পরাজিত আরো দুই মেয়র প্রার্থী পুনর্নির্বাচনের অথবা ভোট পুনর্গণনার দাবি করে নির্বাচন কমিশনে আবেদন করেন। ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বিজিত প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমার ওয়ার্ডের অপর বিজিত প্রার্থী আরমান হোসেন কীর্তিপুর খাদেমুল ইনসান কেন্দ্রের বিষয়ে অভিযোগ করতে একটি সাদা কাগজে সাক্ষর নিয়েছিলেন। পরে সেটি দিয়ে সাবিরা সুলতানা উচ্চ আদালতে রিট করেন।

রিটের বিপরীতে নারাজি দিয়েছি। আমি চাই নবনির্বাচিতরা দায়িত্বগ্রহন করুক। ১ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা মোহাম্মদ নুরনবী বলেন, ২১ বছর পর ভোটের আক্ষেপ মিটলো কিন্তু নতুন জনপ্রতিনিধি পেলাম না দেড় মাসেও। আমরা তো মামলা কপালে পৌরসভার বাসিন্দা। আবার না জানি কতো বছর আটকে থাকতে হয়।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আব্দুস সাত্তার বলেন, এখানে আমি নতুন এসেছি। তবে শুনেছি উচ্চ আদালতে একটি রিটের কারণে এখনও গেজেট প্রকাশ হয়নি।

Comment using Facebook