বেনাপোলে ২০ পিস সোনার বারসহ দুই আটক

0
131

সাকিরুল কবির রিটন, যশোর

যশোরের বেনাপোল সীমান্ত থেকে ২০ পিস স্বর্ণের বারসহ নাসির-রমজান-দেব সিন্ডিকেটের ২ পাচারকারীকে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরা। সোমবার (১৪ ফেব্রুয়ারী) সকালে শার্শা উপজেলার পুটখালী সীমান্ত থেকে তাদের আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলো, বেনাপোল পোর্ট থানার পুটখালী গ্রামের আলী হোসেনের ছেলে লিটন হোসেন (২৫) ও একই এলাকার আজিজুর রহমানের ছেলে হাফিজুর রহমান (২৮)।

বিজিবি জানায়, স্বর্ণ পাচারের গোপন খবরে, বেনাপোল বালুন্ডা কেষ্টপুর গ্রামস্থ পাকারাস্তার উপর থেকে বিজিবি সদস্যরা অভিযান চালিয়ে ২০ পিস স্বর্ণের বার (ওজন ৩.৮৯১ কেজি), ১টি মোটর সাইকেল, ৩টি মোবাইল ফোন ও নগদ ৬ হাজার ৩শ’ ৯০ টাকাসহ তাদেরকে আটক করা হয়।

আটককৃত স্বর্ণের বার এবং অন্যান্য মালামালের আনুমানিক সিজার বাজার মূল্য ২ কোটি ৪৯ লাখ ৫১ হাজার ৯০ টাকা বলে জানায় বিজিবি। ২১ খুলনা ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক মোহাম্মদ মনজুর-ই-এলাহী, আটককৃত স্বর্ণ পাচারকারীদের স্বর্ণের বার এবং অন্যান্য মালামালসহ বেনাপোল পোর্ট থানায় সোপর্দ্য করা হয়েছে।

ট্রেজারিতে সোনা জমা করার কার্যক্রমের জন্য এ বিষয়ে থানায় মামলা করা হয়েছে। সীমান্তের সূত্রগুলো জানায়, আটককৃত সোনা নাসির-রমজান সিন্ডেকেটের। যা তদারকির দায়িত্বে ছিল নাসিরের ভাই জসীমের উপর। তার মাধ্যমে নাসির-রমজান সিন্ডেকেটের ৫ গাড়ি অর্থাৎ ৫০ পিস সোনা জসীমের কাছে দেয়া হলেও নাসিরের পরামর্শে তিন গাড়ি অর্থাৎ ৩০ পিস সোনা নিয়ে নাসির সটকে পড়ে। বিজিবির হাতে আটক হয় দুই গাড়ি অর্থাৎ ২০ পিস। সূত্র আরও জানায়, পুটখালী চোরাই সীমান্তঘাটের মালিক আলোচিত নাসির-রমজান-দেব সিন্ডিকেটের মাধ্যমে প্রতিদিন মণ মণ সোনা পাচার হয়ে চলে যাচ্ছে ভারতের অপু ও বস্ গৌতমের ডেরায়।

এছাড়া আরও অন্ততঃ সাতটি সোনার চালান আজ ভারতে পাচার হয়েছে বলে সীমান্তের সূত্রগুলো জানায়। যার তিনটি চালান পাচার হয়েছে স্বর্ণ পাচারকারীদের ডন নাসির সিন্ডিকেট, দুইটি রমজান সিন্ডিকেট এবং অন্য দুটি চালান পাচার করা হয় দেব সিন্ডিকেটের মাধ্যমে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, প্রতিদিনই এই চক্রের বিপুল সোনা পাচার করা হলেও বাগআঁচড়া নাসিরের নতুন বাড়ি থেকে বেশি সোনা পাচার করা হচ্ছে।

নাসিরের তৃতীয় স্ত্রীও রয়েছে পাচারকারীদের তালিকায়। এরা ভারতে সোনা পাচার করে আর ভারত থেকে ফেনসিডিল ও পাচার করে এনে দেশময় ছড়িয়ে দিচ্ছে।

এ বিষয়ে বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি কামাল হোসেন ভূঁইয়া জানান, “বিজিবি সোনাসহ আসামীদের থানায় সোপর্দ্য করেছে। এদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মঙ্গলবার এদের রিমান্ডের আবেদনসহ কোর্টে সোপর্দ্য করা হবে। আদালত রিমান্ড মঞ্জুর করলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।”

Comment using Facebook