মৃগী রোগ কেন হয়? জানুন এর প্রাথমিক লক্ষণগুলো

0
23


নওয়াপাড়া ডেস্ক
মৃগী রোগ একটি অসংক্রামক দীর্ঘস্থায়ী মস্তিষ্কের রোগ। যা সব বয়সের মানুষকে প্রভাবিত করে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, বিশ্বব্যাপী আনুমানিক ৫০ মিলিয়ন মানুষ মৃগীরোগে ভুগছেন। স্নায়বিক রোগগুলির মধ্যে মৃগী রোগে আক্রান্তের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। মৃগীরোগে আক্রান্তদের হঠাৎ খিঁচুনি হয়। খিঁচুনি হলো মস্তিষ্কে অস্বাভাবিক ও অত্যধিক বৈদ্যুতিক ক্রিয়াকলাপের আকস্মিক বৃদ্ধি, যা একজন ব্যক্তির উপস্থিতি বা আচরণকে প্রভাবিত করতে পারে। ভারতের গুরুগ্রামের মেদান্ত হাসপাতালের এপিলেপসি প্রোগ্রাম ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স এর সহযোগী পরিচালক ডা. আত্মারাম বনসাল জানান, মৃগীরোগে আক্রান্ত ব্যক্তির একাধিক ধরণের খিঁচুনি হতে পারে। যেমন- অনুপস্থিতির খিঁচুনি, যার ফলে পুরো শরীরে ঝিমঝিম অনুভূতি হতে পারে, টনিক খিঁচুনির কারণে পেশি শক্ত হয়ে যায়, জটিল ফোকাল খিঁচুনিতে ব্যক্তি প্রতিক্রিয়া জানাতে পারেন না। ফোকাল খিঁচুনির কারণে মোচড়ানো বা অনুভূতিতে পরিবর্তন হতে পারে, যেমন অস্বাভাবিক স্বাদ বা গন্ধ। মৃগীরোগ বিভিন্ন কারণে হতে পারে বলে জানান এই বিশেষজ্ঞ। মৃগী রোগের প্রধান কারণগুলো হলো বিশ্বব্যাপী মৃগী রোগের প্রধান কারণ হলো সংক্রমণ। মস্তিষ্কের সংক্রমণের কারণে খিঁচুনি হতে পারে। জেনেটিক বা বংশগত কারণেও মৃগী রোগ হতে পারে। মৃগী রোগের প্রাথমিক লক্ষণ কী কী? খিঁচুনি ধরনের উপর নির্ভর করে একজন ব্যক্তির উপসর্গ পরিবর্তিত হতে পারে। বারবার খিঁচুনি মৃগী রোগের অন্যতম প্রাথমিক লক্ষণ। খিঁচুনি হওয়ার আরও লক্ষণগুলো হলো- ১. চেতনা হারানো ২. পেশির অনিয়ন্ত্রিত গতিবিধি ৩. যোগাযোগ ও বোঝার সমস্যা ৪. ভয় ও উদ্বেগ ৫. শ্বাসকষ্ট ৬. হঠাৎ হাত কাঁপা ৭. হাত থেকে জিনিস পড়ে যাওয়া ৮. একদৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকা ইত্যাদি।

Comment using Facebook