বেনাপোল কাস্টমস কমিশনারের সম্পদ কত

বেনাপোল কাস্টমস হাউজের কমিশনার বেলাল হোসেন চৌধুরীর বিরুদ্ধে ঘুষ নিয়ে পণ্য খালাস করার একটি অভিযোগ দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কাছে এসেছে। অভিযোগটি আমলে নিয়ে বেনাপোল কাস্টমসের এ কমিশনারের অবৈধ সম্পদ অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে দুদক। সোমবার কমিশনের সভায় অভিযোগটি অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত হয়।

অনুসন্ধান কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে দুদক প্রধান কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক নেয়ামুল হাসান গাজীকে। দুদকের কাছে আসা অভিযোগে বলা হয়েছে, বেলাল হোসেন চৌধুরী নিজ নামের পাশাপাশি স্ত্রী ও ভাইয়ের নামেও সম্পদ গড়েছেন। জব্দ করা পণ্য ঘুষ নিয়ে খালাস দিয়ে শত কোটি টাকার সম্পদের মালিক হয়েছেন। অভিযোগে আরো বলা হয়েছে,

বেলাল চৌধুরীর রাজধানীর বসুন্ধরার এফ ব্লকে ১২ নম্বর প্লটে পাঁচ কাঠা জমির ওপর পঞ্চম তলা বাড়ি রয়েছে, যার আনুমানিক মূল্য ৫ কোটি টাকা। নিউ ইস্কাটনে তার স্ত্রীর নামে আছে ৪ কোটি টাকা মূল্যের চার হাজার বর্গফুটের একটি ফ্ল্যাট। বসুন্ধরার ডি ব্লকে পাঁচ কাঠা ও পূর্বাচলে ১০ কাঠার আবাসিক প্লট। বসুন্ধরা সিটি ও যমুনা ফিউচার পার্কে আছে চারটি দোকান।

এছাড়া বেলালের গ্রামের বাড়ি নোয়াখালীতে ৫০ বিঘা জমি, আশুলিয়ায় ১০ বিঘা জমি ও গাজীপুরে বেলালের ভাইয়ের নামে একটি গার্মেন্টস কারখানার তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে অভিযোগে।

বেনাপোল দিয়ে পন্য আমদানি করে এমন একাধিক আমদানিকারক জানান, কাস্টম কমিশনার কাস্টম ক্লাবের নামে তাদের কাছ থেকে প্রতি এলসিতে টাকা আদায় করতেন। টাকা না দিলে তাদের হয়রানির শিকার হতে হতো। কতিপয় সিএন্ডএফ এজেন্টের সাথে সখ্যতা গড়ে তুলে ফাঁকিতে সহায়তা করতেন। এ বিষয়ে কথা বলার জন্য বেলাল হোসেন চৌধুরীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি সাংবাদিকদের জানান, অভিযোগটি ভিত্তিহীন। একটি মহল অনৈতিক সুবিধা নিতে না পেরে আমার বিরুদ্ধে এসব ভুয়া অভিযোগ করছেন।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

আর্কাইভ হতে খুঁজুন

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১