আজ রবিবার ৫ই এপ্রিল, ২০২০ ইং রাত ১:০৫

add

ঝিনাইদহে বর্ষা মৌসুমেও মাঠ-ঘাট চৌচির : কৃষকের কপালে ভাঁজ

ফয়সাল আহমেদ, ঝিনাইদহ
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৪, ২০১৯ সময় : ২৩:৪৫:৫৮

অন্য বছরগুলোতে এই জমিতে একই সময় হাঁটু সমান পানি থাকতো, এবার সেচ দিয়েও জমিতে পানি ধরে রাখা যাচ্ছে না। তিন থেকে চার দিন পর পর সেচ দিলেও মাটি ফেটে যাচ্ছে। আর ফাঁটা জমিতে বেশি পানির প্রয়োজন হচ্ছে। দুঃখ প্রকাশ করে কথাগুলো বলছিলেন ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার মুন্দিয়া গ্রামের কৃষক সাজু আহম্মেদ। তিনি দুই বিঘা জমিতে রোপা আমন ধানের চাষ করেছেন। আরেক কৃষক তোতা মিয়া জানান, বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টির পানি জমবে এই ভরসায় তুলনামূলক উচু জমিতে ধান চাষ করেন। কিন্তু এ বছর ঠিকমতো বৃষ্টি না হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন। পানির অভাবে মাঠের ধান গাছগুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। অনেকে অধিক পয়সা ব্যয় করে সেচ দিচ্ছেন, আবার অনেকে গত বোরো মৌমুমে ধানের মুল্য ঠিকমতো না পেয়ে রোপা আমন মৌসুমে অধিক পয়সা ব্যয় করতে চাচ্ছেন না।

কৃষি বিভাগ সুত্রে জানাগেছে, চলতি রোপা আমন মৌসুমে ঝিনাইদহ জেলায় ১ লাখ ৫ হাজার ৬৪৬ হেক্টর জমিতে ধান চাষ লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়। কিন্তু চাষ হয়েছে ১ লাখ ৪ হাজার ১২৫ হেক্টর জমি। যার মধ্যে বেশিরভাগ জমিতে চাষ হয়েছে স্বর্ণা জাত। এছাড়াও রয়েছে ব্রী-৪৯ জাত। কৃষি বিভাগের হিসাবে চাষকৃত জমি থেকে ৩ লাখ ৫৮৮ মেঃ টান চাল উৎপাদন হবে। যা ধানে ৪ লাখ ৬২ হাজার ৪৪৩ মেঃ টন। হিসাব অনুযায়ী প্রতি একরে ধান উৎপাদন হবার কথা ৪৫ মন। অবশ্য কৃষকরা বলছেন, এবার ধানগাছ যেভাবে বেড়ে উঠছিল তাতে উৎপাদন আরো বেশি হতো। তাদের হিসাবে একরে ৫০ থেকে ৫৫ মন ধান উৎপাদন হওয়ার কথা। কিন্তু বৃষ্টির অভাবে ধান গাছ ঝিমিয়ে পড়ছে, এতে উৎপাদন কমে যাবার আশংরা রয়েছে।

সদর উপজেলার তেতুলতলা গ্রামরে কৃষক রাকিবুল ইসলামের সঙ্গে। তিনি জানান, দুই বিঘা জমিতে স্বর্ণা জাতের ধানের চাষ করেছেন। জমি তৈরী, ধানগাছ রোপন, আগাছা পরিষ্কার, একদফা সার-কীটনাশক দিয়েছেন। ধান গাছগুলোও তর তর করে বেড়ে উঠছিল। আশা ছিল একবিঘায় ১৮ থেকে ২০ মন ধান পাবেন। কিন্তু পানির অভাবে হঠাৎ গাছগুলো থমকে গেছে। জমির মাটি ফেটে যাচ্ছে। এই সময় ধানের জমিতে বৃষ্টির পানি থাকে। কিন্তু এবার স্যালো মেশিন দিয়ে পানি নিতে হচ্ছে। এতে তাদের খরচ বেড়ে যাচ্ছে। এরপরও তিন-চার দিন পর পর পানি দিয়েও মাটি ভিজিয়ে রাখা যাচ্ছে না। দ্রুতই মাটি ফেটে যাচ্ছে, আর এই ফাটা মাটিতে সেচের পানিও বেশি প্রয়োজন হচ্ছে। কালীগঞ্জ উপজেলার বুজুরুক-মুন্দিয়া গ্রামের কৃষক আনছার আলী জানান, এই বর্ষা মৌসুমে সেচের আওতার বাইরেও কিছু জমি কৃষকরা ধান চাষ করে থাকেন। তিনিও তুলনামূলক উচু এক বিঘা জমিতে ধান চাষ করেছেন। সেই জমি পানির অভাবে শুকিয়ে যাচ্ছে।

ইতিমধ্যে ধানগাছগুলো লাল হয়ে গেছে। এখন এই জমির ধান কিভাবে বাঁচাবেন বুঝে উঠতে পারছেন না। কৃষক হাফিজুল ইসলাম জানান, বোরো মৌসুমে তারা স্যালো মেশিন থেকে পানি নিয়ে ধান চাষ করেন। এক মৌসুমে বিঘা প্রতি তাদের ২ হাজার থেকে ২২ শত টাকা দিতে হয়। আর রোপা আমন মৌসুমে বেশির ভাগ বৃষ্টির পানি ব্যবহার হয়। মাঝে মধ্যে সেচ দিয়ে থাকেন। এর জন্য এক মৌসুমে ৭ থেকে ৮ শত টাকা দিতে হতো। এবার প্রথম থেকেই স্যালো মেশিন দিয়ে সেচ দিতে হচ্ছে। মাঝে মধ্যে যে সাামন্য বৃষ্টি হচ্ছে তাতে এখনও জমিতে পানি জমছে না। ফলে স্যালো মেশিনের সেচের উপর তাদের নির্ভর করতে হচ্ছে। এর ফলে উচু জমির চাষ হওয়া ধানের গাছগুলো শুকিয়ে যাচ্ছে, আর নিচু জমিতে সেচ দিলেও ফলন নষ্ট হবার আশংকা রয়েছে।

কৃষি বিভাগের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তারা বলছেন, ঝিনাইদহের মাঠে এবার ধান ক্ষেত দেখে কৃষকের পাশাপাশি তারাও খুব খুশি ছিলেন। আশা করেছিলেন লক্ষমাত্রার চেয়ে বেশি ফলন পাবেন। কিন্তু বৃষ্টির অভাবে কিছুটা নষ্ট হবার আশংকা দেখা দিয়েছে। কর্মকর্তারা বলছেন, এবার জুন মাসে ৯৬ মিঃ মিটার, জুলাই মাসে ১৭১ মিঃ মিটার ও আগষ্ট মাসে ১৯৬ মিঃ মিটার বৃষ্টি হয়েছে। এই বৃষ্টি রোপা আমন চাষের জন্য খুবই সামান্য। এ বিষয়ে ঝিনাইদহ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ জিএম আব্দুর রউফ জানান জানান, বর্তমানে ধান গাছ যে স্তরে আছে তাতে একটু পানি কম থাকলেও ফলনের তেমন একটা ক্ষতি হবে না। তবে কৃষকের সেচ দিতে হলে খরচ বেশি হবে। তিনি বলেন, ধান গাছে যখন মোচা (থোড়) হতে তখন পানি কম হলে ফলন কমে যাবে। তিনি বলেন, এ বছর বৃষ্টির পানির খুবই সমস্যা হচ্ছে। তবে এখনও তারা আশাবাদি ২/৩ দিনের মধ্যে বৃষ্টি হলে সব সমস্যা সমাধান হয়ে যাবে। তিনি বলেন, উচু জমিতে যারা ধান চাষ করেছেন তাদের ক্ষেত্রে একটু বেশি সমস্যা দেখা দিয়েছে

Print Friendly, PDF & Email
কালীগঞ্জে এমপি কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী খেলায় রাজশাহীর হার
নড়াইলে মাশরাফির গড়া নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের ২য় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর উদ্বোধন
খাজুরার তৈলকুপে সংঘর্ষে আহত ৩ : হাসপাতালে ভর্তি ১
নড়াইলের মানুষকে চিকিৎসা দিবে এমপি মাশরাফির ভ্রাম্যমাণ হাসপাতাল
বিএনপির প্রস্তাব বিভ্রান্তিকর ও কা-জ্ঞানহীন -কাদের
যশোরে ৫শ’ পরিবারকে খাদ্যদ্রব্য দিলেন কবু
যশোরের ৪ ইউনিয়নে এমপি নাবিল আহমেদ এর পক্ষে খাদ্য সামগ্রী প্রদান
কালিগঞ্জে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে এইচএসসি পরীক্ষার্থীর মৃত্যু
কালিগঞ্জে জনসাধারণকে সচেতন ও অসহায়দের মাঝে খাদ্য সামগ্রী প্রদান
ডুমুরিয়ায় মসজিদে অগ্নিকান্ড : লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়-ক্ষতি
চৌগাছার আরো ৫শ’ পরিবারে মাসুদ চৌধুরীর খাদ্য সহায়তা প্রদান
চৌগাছায় দুস্থ্যদের মাঝে বিএনপির উদ্যোগে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ
চৌগাছায় করোনা প্রতিরোধে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আলোচনা সভা
মঠবাড়িয়ায় বিএনপির ত্রাণ বিতরণ ও জীবানু নাশক স্প্রে
মঠবাড়িয়ায় মৎস্য পুকুরে বিষ : ১০ মণ মাছের ক্ষতি
বাঘারপাড়ায় দরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান
মোল্লাহাটে দরিদ্রদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ
খুলনায় দরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রি বিতরণ
অসহায় পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ
বাঘারপাড়া হাসপাতালে গ্লাভস ও সাবান গ্রদান
ঝিনাইদহে নিন্মআয়ের মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ
কোটচাঁদপুরে জ্বর-কাশি ও শ্বাসকষ্টে একজনের মৃত্যু : নমুনা সংগ্রহ
‘গোয়াল ঘর আপনার গরু আমাদের’ লিখে গরু চুরি : গণপিটুনিতে নিহত তিন : আটক এক
যশোরের ৬টির মধ্যে ৪টিতে আসছেন বর্তমান এমপি
অভিযোগ বাক্স ঝুঁলিয়েছেন এমপি তন্ময় : আতংকে মাদক সিন্ডিকেট
সিপাই থেকে ওসি হয়ে শতকোটি টাকার পাহাড়! দুদকে অভিযোগ
কোথাও ঠাঁই নেই : কবরস্থানে মা- ছেলের বসবাস
করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তির লক্ষে বিশেষ দোয়া ও লিফলেট বিতরণ করলেন- নওয়াপাড়ার গদ্দীনশীন পীর
নওয়াপাড়ার ধোপাদী গ্রামে ৩ ইভটিজারকে গণধোলাই
যশোরের নতুন পুলিশ সুপার হলেন আশরাফ হোসেন
লোহাগড়া হাসপাতাল থেকে ডেঙ্গু রোগীকে বের করে দিয়েছেন সেবিকা কল্পনা ও সাধনা!
বাঘারপাড়ায় ধর্ষণের পর হত্যা করে জয়নবের লাশ ঘেরে ফেলেছে হাফেজ মুজিবুল
নিষিদ্ধ ঘোষিত এনার্জি ড্রিংক্স
যশোর শিক্ষাবোর্ডের সাড়ে ২৯ লাখ টাকা অপচয় বন্ধ করে দিলেন ড. মোল্লা আমীর হোসেন
রাজগঞ্জে কাজীকে ৬ মাসের জেল, মেয়ের পিতা চাচা ও স্বামীকে জরিমানা
নওয়াপাড়ায় মাছ বাজারে ১ কেজি বাটখারার ওজন ৮শ’ গ্রাম :
পথ দেখালো মডেল স্কুল :অনুসরণ করলো আল হেলাল: নওয়াপাড়ায় গ্রীষ্মকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় আবারও সংঘর্ষ : নদী সাঁতরে প্রাণ রক্ষার চেষ্টা
নওয়াপাড়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় প্যানেল মেয়র রবিন অধিকারী ব্যাচাসহ ৪ জন আহত
 চোখের জল ফেলবেন নওয়াপাড়া শংকরপাশা সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অফিস সহকারী সরোয়ার!
এমপি কাজী নাবিল আহমেদের হাতের ছোঁয়ায় চাঁচড়া ইউনিয়নে ব্যাপক উন্নয়ন
অভয়নগরে যাত্রী বেশে মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের চেষ্টা : গণপিটুনিতে নিহত ছিনতাইকারী
নওয়াপাড়া কলেজের স্বর্ণযুগ : ডাক্তারী পড়ার সুযোগ পেলো ৬ মেধাবী মুখ

ই-পত্রিকা-কাগজে যেমন অনলাইনে তেমন

ePaper

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০  
প্রয়োজনীয় নাম্বার

অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা : ০১৭১৭৮১৩৩৪৪

নওয়াপাড়া রেলওয়ে মাষ্টার : ০১৭১৮৫৮১০৯৪

হাইওয়ে থানা ওসি : ০১৭৬৯৬৯০৪৫৯

UNO অভয়নগর : ০১৭৩৩০৭৪০৩৫

অভয়নগর থানা : ০১৭১৩ ৩৭৪১৬৭

ফায়ার সার্ভিস : ০১৭৩২ ৫৫০৪৬০

জাতীয় জরুরী সেবা : ৯৯৯

খুলনা বিভাগীয় এর আরও খবর