ঝিকরগাছার শরিফুলের কর্মকান্ড : বেরিয়ে আসছে থলের বিড়াল

যশোরের ঝিকরগাছা পৌরসভার অর্ন্তগত ওয়াপদাহ রোডে প্রায় ৫ বছর পূর্বে ছিলো ঐতিহ্যবাহী ক্লিনিকের একটি প্রতিষ্ঠান সালেহা ক্লিনিক। যার মালিক ছিলেন উপজেলার ৬নং ঝিকরগাছা ইউনিয়নের বেড়েলা গ্রামের আমজাদ হোসেন এর ছেলে শরিফ উদ্দীন। আর শরিফ উদ্দীন সালেহা ক্লিনিকের মালিক হয়ে এখন হয়েছে শরিফুল ইসলাম শরিফ। তার বিষয়ে তথ্য খুঁজতে গিয়ে বেরিয়ে এলো থলের বিড়াল। এই ক্লিনিকে কোন প্রকার ডিপ্লোমা ধারী নার্স নাই। ক্লিনিকের মালিক কথিত ডাক্তার শরিফুল ইসলামের কারণে সম্প্রতি ১৩ সেপ্টেম্বর, শুক্রবার রাতে ঝরে গেল বৈশাখী আক্তার বিথী (২৬) নামের আর একটি প্রাণ।

 

তিনি ৬নং ঝিকরগাছা ইউনিয়নের আনসার ও ভিডিপির দলনেত্রী, উপজেলার মৌলিক সাক্ষরতা প্রকল্প (৬৪) জেলার ৬নং ওয়ার্ডের শিক্ষিকা ও উপজেলার সদর ইউনিয়নের পদ্মপুকুর গ্রামের মিজানুর রহমানের স্ত্রী এবং পায়রাডাঙ্গা গ্রামের আব্দুল মান্নানের মেয়ে। সালেহা ক্লিনিকের মালিক শরিফুল ইসলাম ডাক্তার না হয়েও বিথির শরীরে পেইন উঠানোর জন্য একাধিক ইনজেকশন দেয় বলে অভিযোগ উঠেছে। এর কিছুক্ষণ পর বিথি অচেতন হয়ে পড়ে। এসময় ওই ক্লিনিকে থাকা অদক্ষ সেবিকা ও ক্লিনিকের মালিক জোরপূর্বক নরমাল ডেলিভারী করায়। বিথি একটি ছেলে সন্তান জন্ম দেয়।

 

এরপর অতিরিক্ত রক্তক্ষরনে গৃহবধু বৈশাখী আক্তার বিথির মৃত্যু হয়। বর্তমানে তার ছেলে খুবই অসুস্থ এবং যশোর সদর হাসপাতালের শিশু বিভাগে ভর্তি রয়েছে। শরিফুল ইসলাম শরিফের প্রতিষ্ঠান সালেহা ক্লিনিকে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে সরকারী চোরাই ঔষধ বিক্রয়ের জন্য ৬ বছর পূর্বে ওয়াপদাহ রোডে ক্লিনিক থাকা অবস্থায় ২ বার তার ক্লিনিকে তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয়। যার পরিপেক্ষিতে রাজনৈতিক চাপের উপর ভিত্তি করে সে তার সালেহা ক্লিনিকটি স্থান পরিবর্তন করে বর্তমানে পৌরসভার অর্ন্তগত মোবারকপুর নিমতলাস্থ মনোয়ারা কমপ্লেক্সের ২য় তলায় স্থানান্তর করে।

 

বর্তমানে সে ওখানে ব্যাপক হারে অনিয়ম ও দূর্নীতি শুরু করে আসছে। তার অপকর্মের মধ্যে রয়েছে সে কখনও বিশেষজ্ঞ ডাক্তার হয়ে ডাক্তারের প্যাড ব্যবহার করে রোগী দেখেন, সরকারী চোরাই ঔষধ বিক্রয় করেন, ক্লিনিকের ফ্রিজে রক্ত রাখেন এবং সেই রক্তের সাথে রান্না করা খাবারও রাখেন। ওয়াপদাহ রোডে ক্লিনিক থাকা অবস্থায় কাউরিয়ার একটি মেয়ের সাথে প্রেমজ সর্ম্পক গড়ে তোলে এবং সময়ের পরিবর্তনের সাথে তাল মিলিয়ে নোয়ালী থেকে আসা একটি গৃহবধুকে নার্সের চাকুরী দিয়ে তার সাথেও প্রেমজ সর্ম্পক গড়ে তোলে।

 

এই সর্ম্পকের কথা এলাকার সচেতন মহল জানতে পেরে সতর্ক করে দিলে শরিফুল তার ক্লিনিকটি সরিয়ে মোবারকপুর নিমতলাস্থ মনোয়ারা কমপ্লেক্সের ২য় তলায় নতুন ব্যবসা স্থাপন করেন। গোপন সংবাদের উপর ভিত্তি করে বিগত ২১/০৯/২০১৬ইং তারিখে সালেহা ক্লিনিকের মালিক শরিফুলের ক্লিনিকে সরকারি ঔষধ রাখার জন্য সাবেক উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ আঃ জলিল প্রায় ১ লাখ টাকা মূল্যের সরকারি ঔষধ জব্দ করেন এবং মেডিকেল প্রাকটিশনার এন্ড বেসরকারি ক্লিনিক ও ল্যাবরেটরী অধ্যাদেশ-১৯৮২ আইনে নগদ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন আথবা অনাদায়ে ছয় মাসের জেল দেয়া হয়।

 

কিন্তু সে নগদ টাকা জরিমানা দিয়ে রেহায় পান এবং সেই সময় তার বিরুদ্ধে সরকারী ঔষুধ রাখার দায়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সার্টিফিকেট সহকারী (মোবাইল কোর্টের বেঞ্চ সহকারী) মঈন উদ্দীন বাদি হয়ে ৪১৩ ও ৪১১ পিসি ধারায় ঝিকরগাছা থানায় একটি মামলা করেন। মামলা নং ২০। তারিখ ২১/০৯/২০১৬ইং। সে তার সহকর্মী নোয়ালী গৃহবধু নার্সকে নিয়ে প্রেমজ সর্ম্পকের সাথে তাল মিলিয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করছিল। ২০১৭ইং সালে তার প্রতিষ্ঠানে নার্স হিসাবে ফতেপুর গ্রামের একটি মেয়েকে চাকুরী দেয় এবং তার সাথেও প্রেমজ সর্ম্পক গড়ে তোলে।

 

নোয়ালী গৃহবধু নার্স দেখে যে আমার সাথে মালিকের গভীর সর্ম্পক রয়েছে আর এখানে সে আসতে না আসতেই আমার স্থান দখল করছে। এটা কখনো সম্ভব না! এটার প্রতিহত করা দরকার। তা না হলে আমার মতো অনেক অবলা নারীর সাথে ছলনা করে তাদের জীবনটা নষ্ট করবে। এই কথা চিন্তা করে নোয়ালী গৃহবধু নার্স প্রতারক শরিফুলকে জব্দ করার একটা পরিকল্পনা করে। ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৭ইং তারিখ সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার সময় মালিক শরিফুল ও ফতেপুর গ্রামের মেয়ে অনৈতিক কাজে লিপ্ত ছিল ঠিক সেই মুহুর্তে নোয়ালীর গৃহবধু নার্সটি ঘটনাস্থলে হাজির হয়ে গোলযোগ সৃষ্টি করে। তার চিৎকারে এলাকার লোকজন ঘটনাস্থলে (ক্লিনিকে) উপস্থিত হয় এবং ঘটনা সর্ম্পকে অবগত হন। এলাকার মধ্যে সুবিধাভোগী এক পক্ষ শরিফুলের কাছে ফতেপুর গ্রামের মেয়ের সাথে তার সর্ম্পকের কথা জানতে চাইলে তিনি (শরিফুল) বলে ওকে আমি বিয়ে করেছি।

 

এলাকার লোকজন বিয়ের প্রমাণ চাইলে সে বিয়ের প্রমাণ দিতে ব্যর্থ হয়। যার বুনিয়াদে সুবিধাভোগীরা তাদের সুবিধা ভোগ করে চলে যায়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে শরিফুল তার নোয়ালী গৃহবধু নার্সকে মেরে ক্লিনিক থেকে বের করে দেয়। এছাড়াও গত ৭ ডিসেম্বর ২০১৮ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তানজিলা আক্তার, হাফিজুল হক ও সিভিল সার্জন অফিসের মেডিক্যাল অফিসার ডাক্তার মীর আবু মাউদ ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করে সালেহা ক্লিনিক মালিক শরিফুল ইসলাম ব্যবস্থাপত্রে নিজেকে চিকিৎসক হিসেবে উল্লেখ করায়, বৈধ কোনো কাগজপত্র না থাকায় ও ক্লিনিকের অব্যবস্থাপনায় ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। সেই সময় ক্লিনিকে অপারেশন রোগী থাকায়, সিলগালা করা না হলেও এই প্রতিষ্ঠানটি বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিলো। কিন্তু আজ অবধি প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ হয়নি। এই হল ক্লিনিকের মালিক শরিফুল ইসলামের চরিত্র।

 

তার জন্য সমগ্র ডাক্তার জাতিই হচ্ছে কলঙ্কিত। সমগ্র ডাক্তার জাতিই কলঙ্কিত হলে তাতে তার কি ? তিনি তো বাংলাদেশ মানবাধিকার কল্যাণ ট্রাষ্টের ঝিকরগাছা উপজেলা শাখার সহ সাধারন সম্পাদক। জনতার প্রশ্ন একটাই! যে ব্যক্তি নিজেই মানবাধিকার লঙ্ঘনের কারখানা খুলে বসেছে সে বাংলাদেশ মানবাধিকার কল্যাণ ট্রাষ্টের সদস্য হয় কি করে ? সে একের পর এক অনৈতিক কার্যকালাপে লিপ্ত থেকে রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের মানহানী কার্যক্রম পরিচালনা করেছে। সব মিলিয়ে সে তার ক্ষমতার অপব্যবহার করে একের পর এক অন্যায় করে যাচ্ছে। প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে এলাকার সচেতন মহল।

 

এই বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. শরিফুল ইসলাম জানান, সালেহা ক্লিনিকের মালিক শরিফুলের সাথে আমার নামের মিল থাকায় তাকে নিয়ে আমার খুব সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। সে যত অপকর্ম করবে সেটার বিষয় নিয়ে বিভিন্ন মাধ্যম আমাকে দোষারোপ করেন। তাকে নিয়ে আমি অনেক সমস্যায় আছি। তার এখানে রোগীর মৃত্যুর খবর আমি শুনেছি। আমার উপর মহল থেকে এটার বিষয়ে তদন্তের জন্য বলা হয়েছে।

 

আমি তদন্ত করছি। তদন্তে সঠিক বিষয়টি বের করে আমি আমার উপর মহলে রিপোর্ট দিব। সেই সময় আপনাদেরকে জানাতে পারবো প্রকৃত বিষয়টি কি হয়েছিলো। তার জন্য আপনাদের একটু অপেক্ষা করতে হবে। থানার অফিসার ইনচার্জ মো: আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আমরা আইনের লোক জানেন তো আমাদের কাছে কোন অভিযোগ না আসলে আমরা কিছু করতে পারি না। তবুও আমি বিথির পরিবারের সাথে যোগাযোগ করে অভিযোগ দিতে বলছি কিন্তু আজ অবধি তারা কেউই থানায় এসে অভিযোগ দিচ্ছে না। আমি চেষ্টায় আছি অভিযোগটি পেলেই অতিদ্রত ব্যবস্থা নিব।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

আর্কাইভ হতে খুঁজুন

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১